,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

সেনাবাহিনীতে সৈনিক পদে নিয়োগ

army
বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ২০১৬ ব্যাচের জন্য সৈনিক পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী সাধারণ পেশা (জিডি) ও কারিগরি পেশা পদে লোকবল নিয়োগ দেওয়া হবে। জিডি পদের জন্য আবেদন করতে পারবেন নারী-পুরুষ উভয়েই। তবে কারিগরি পেশায় শুধু পুরুষ প্রার্থীরাই আবেদন করতে পারবেন। জেলা অনুযায়ী স্বাস্থ্য, লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা শুরু হবে আগামী ৬ ডিসেম্বর, চলবে ১৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত। আবেদনের জন্য প্রার্থীদের প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ পরীক্ষার দিন নিজ নিজ জেলার উল্লিখিত আর্মস/সার্ভিস সেন্টারগুলোয় সশরীরে উপস্থিত থাকতে হবে।

আবেদনের যোগ্যতা:
জিডি পদে আবেদনের জন্য প্রার্থীর বয়স ১৫ নভেম্বর ২০১৫ তারিখে ১৭ থেকে ২০ বছরের মধ্যে হতে হবে এবং প্রার্থীকে এসএসসি বা সমমানের পরীক্ষায় কমপক্ষে জিপিএ ৩.৫০ পেয়ে উত্তীর্ণ হতে হবে। এ ক্ষেত্রে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে উত্তীর্ণ প্রার্থীদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে।
কারিগরি পেশা পদে আবেদনের জন্য প্রার্থীর বয়স ১৫ নভেম্বর ২০১৫ তারিখে ১৭ থেকে ২১ বছরের মধ্যে হতে হবে এবং প্রার্থীকে এসএসসি বা সমমানের পরীক্ষায় বিজ্ঞান বিভাগ থেকে কমপক্ষে জিপিএ ৩.৫০ পেয়ে উত্তীর্ণ হতে হবে। তবে কারিগরি পেশায় চালক পদের প্রার্থীদের বয়স ১৫ নভেম্বর ২০১৫ তারিখে ১৮ থেকে ২১ বছরের মধ্যে হতে হবে এবং যেকোনো বিভাগ থেকে এসএসসি পাস ও বৈধ ড্রাইভিং লাইসেন্সধারী হতে হবে। এ ক্ষেত্রে টিটিটিআই থেকে ড্রাইভিং প্রশিক্ষণের সনদপ্রাপ্ত প্রার্থীদের যোগ্য বলে বিবেচনা করা হবে।
জিডি ও কারিগরি পেশায় আবেদনের জন্য পুরুষ প্রার্থীদের ক্ষেত্রে শারীরিক উচ্চতা কমপক্ষে পাঁচ ফুট ছয় ইঞ্চি, ওজন কমপক্ষে ৪৯.৯০ কেজি এবং বুকের মাপ স্বাভাবিক অবস্থায় ৩০ ইঞ্চি এবং স্ফীত অবস্থায় ৩২ ইঞ্চি হতে হবে। তবে বিভিন্ন ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী ও সম্প্রদায়ের প্রার্থীদের ক্ষেত্রে উচ্চতা হতে হবে কমপক্ষে পাঁচ ফুট চার ইঞ্চি।
জিডি পেশায় আবেদনের জন্য নারী প্রার্থীদের ক্ষেত্রে শারীরিক উচ্চতা কমপক্ষে পাঁচ ফুট তিন ইঞ্চি, ওজন কমপক্ষে ৪৭ কেজি এবং বুকের মাপ স্বাভাবিক অবস্থায় ২৮ ইঞ্চি ও স্ফীত অবস্থায় ৩০ ইঞ্চি হতে হবে। তবে বিভিন্ন ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী ও সম্প্রদায়ের প্রার্থীদের ক্ষেত্রে উচ্চতা হতে হবে কমপক্ষে পাঁচ ফুট এক ইঞ্চি। উভয় পদের প্রার্থীদের অবশ্যই স্বাস্থ্য পরীক্ষায় উত্তীর্ণ, অবিবাহিত এবং সাঁতার জানা থাকতে হবে।
মুক্তিযোদ্ধার পোষ্যদের জন্য ভর্তির সব শর্ত পূরণ সাপেক্ষে ৩০ শতাংশ কোটা নির্ধারিত থাকবে। এ ক্ষেত্রে মুক্তিযোদ্ধা পোষ্য কোটায় ভর্তির জন্য বাংলাদেশ সরকারের মুক্তিযুদ্ধ-বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রদত্ত মুক্তিযোদ্ধা সনদপত্র ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে মুক্তিযোদ্ধার পোষ্য হিসেবে প্রদত্ত সনদপত্র প্রমাণস্বরূপ রিক্রুটিং কর্তৃপক্ষের কাছে উপস্থাপন করতে হবে।

নির্বাচন-পদ্ধতি:
প্রার্থীদের নিজ নিজ জেলার নির্ধারিত তারিখ, সময় ও স্থানে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ উপস্থিত হয়ে লিখিত পরীক্ষা, স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে। লিখিত পরীক্ষায় প্রার্থীর বাংলা, ইংরেজি, গণিত, সাধারণ জ্ঞান ও বুদ্ধিমত্তা যাচাই করা হবে। সফলভাবে সব পরীক্ষায় উত্তীর্ণ পরীক্ষার্থীদের মধ্য থেকে নিয়োগের দিন চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত প্রার্থীদের নিয়োগ দেওয়া হবে।

বেতন-ভাতা ও অন্যান্য সুবিধা:
চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত প্রার্থীরা সশস্ত্র বাহিনীর পদমর্যাদা অনুযায়ী নির্ধারিত স্কেলের বেতন পাবেন। এ ছাড়া চূড়ান্তভাবে নিয়োগপ্রাপ্ত প্রার্থীরা উচ্চশিক্ষার সুযোগ, ভাতা, পেনশনসহ বিনা মূল্যে আহার ও বাসস্থানের সুযোগ পাবেন। এ ছাড়া নিজ পরিবার, মা-বাবা ও শ্বশুর-শাশুড়ির জন্য সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসার সুবিধা, বিনা মূল্যে সরকারি পোশাক-পরিচ্ছদ, নিজ ও পরিবারের জন্য ভর্তুকি মূল্যে রেশন, সেনাবাহিনী কর্তৃক পরিচালিত বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সন্তানদের জন্য যোগ্যতা সাপেক্ষে উচ্চশিক্ষার সুযোগ, চাকরির শর্ত সাপেক্ষে সেনাপল্লিতে প্লটপ্রাপ্তির সুবিধা, নীতিমালা অনুযায়ী জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী বাহিনীতে যোগদান করে বিদেশ ভ্রমণ ও আর্থিক সচ্ছলতা অর্জনের সুযোগ পাবেন।

মতামত...