,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

স্কুল ছাত্রী রিশার খুনি ধরাছোঁয়ার বাইরে!

a

খুনি কাটিং মাস্টার ওবায়দুল

a1নিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ রিভিউজঃ রাজধানীর কাকরাইলে উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুলের ছাত্রী সুরাইয়া আক্তার রিশাকে (১৫) ছুরিকাঘাত করে কাটিং মাস্টার ওবায়দুল। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রবিবার (২৮ আগস্ট) সকাল সাড়ে ৮টায় মারা যায় রিশা।
ঘটনার পর তাকে ধরতে ইস্টার্ন মল্লিকা শপিং মলের বৈশাখী টেইলার্সে অভিযান চালানো হয়। কিন্তু সেখানে তাকে পাওয়া যায়নি। গত কয়েদিন সে তার কর্মস্থলে অনুপস্থিত। তাকে গ্রেফতার করতে সম্ভাব্য সব স্থানে অভিযান চলছে।

উইলস লিটল ফ্লাওয়ারের একাদশ শ্রেণির ছাত্র রাফি জানায়, সে ফুটওভার ব্রিজের নিচ দিয়ে কলেজে যাচ্ছিল। এ সময় চিৎকার শুনে ফুটওভার ব্রিজের ওপরে গিয়ে রিশাকে আহত অবস্থায় দেখতে পায়। এ সময় একজনকে দৌড়ে পালাতে দেখে সে।
রিশার মা তানিয়া হোসেন জানান, ৫-৬ মাস আগে রাজধানীর এলিফ্যান্ট রোডে অবস্থিত ইস্টার্ন মল্লিকা শপিং মলে বৈশাখী টেইলার্স নামে একটি টেইলার দোকানে জামা বানাতে দেয় রিশা। ওই সময় তার মোবাইল নম্বরটিও দেয়া হয়। এরপর থেকে ওই টেইলার্সের কাটিং মাস্টার ওবায়দুল তার মেয়েকে প্রায়ই ফোন করে উত্ত্যক্ত করত। পরে বাধ্য হয়ে ফোনের ওই সিমটি বন্ধ করে দেয়া হয়। এরপর স্কুলে যাওয়া আসার পথে প্রায়ই ওই কাটিং মাস্টার তার মেয়েকে বিরক্ত করত। স্কুলের গেটের সামনে দাঁড়িয়ে থাকত।

রিশার বাবা রমজান হোসেন বলেন, ‘স্কুলের সহপাঠীরাই আমাকে ফোন দিয়ে জানায়, রিশা আহত। তাড়াতাড়ি ঢাকা মেডিক্যালের জরুরি বিভাগে আসেন। তারপর আমরা এসে দেখি, মেয়ের শুধু চিৎকার করতেছে। ওর মাকে শুধু বলছে, টেইলার্সের ওই লোকটা আমাকে মারছে মা। পুলিশের কাছেও জবানবন্দি দিয়ে গেছে। আইসিইউতে আমার সামনে চোখ খুলেছিল। ওর কথা বলতে কষ্ট হচ্ছে দেখে আমি কিছু জিজ্ঞাসা করিনি। শুধু বলেছি, বাবা তুমি ভয় পাইয়ো না। আমরা তোমার সামনে আছি। তখন হাত দুটো বাড়ায়ে দিলো। আমি আমার দুই হাত দিয়ে ওর দুইটা হাত ধরলাম। ওকে অভয় দিলাম। কিন্তু কী করতে পারলাম! মেয়েটারে বাঁচাইতে পারলাম না’ বলেই আবার শুরু হয় তার আহাজারি। কাঁদতে কাঁদতে রিশার বাবা বলেন, আমার মেয়েটার অপরাধ কী, সেটাই জানতে পারলাম না!’
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা রমনা থানার এসআই মোশাররফ হোসেন জানান, বুধবার উইলস লিটলের সামনে ওভারব্রিজে রিশাকে ছুরিকাঘাতের পর থেকেই পলাতক রয়েছেন কাটিং মাস্টার ওবায়দুল।
এসআই মোশাররফ হোসেন জানান, শনিবার সকালে রিশার মৃতুর পর ওবায়দুলকে গ্রেফতার করতে অভিযান জোরদার করা হয়েছে। এ নিয়ে পুলিশের একাধিক টিম কাজ করছে। আশা করা যাচ্ছে শিগগিরই তাকে গ্রেফতার করা সম্ভব হবে।

মতামত...