,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

স্মার্ট এনআইডি কার্ড গ্রহণ করে প্রধানমন্ত্রী বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করলেন

pm hasina

নিজস্ব প্রতিবেদক,বিডিনিউজ রিভিউজঃ উন্নতমানের জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) বা স্মার্টকার্ড গ্রহণ করেছেন প্রধানমন্ত্রী smart-nidশেখ হাসিনা। এর মধ্য দিয়ে উদ্বোধন হলো স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ কার্যক্রমের।

আজ রবিবার ২ আক্টোবর সকালে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে এই কার্ড বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। চোখের আইরিশ ও আঙুলের ছাপ দিয়ে এই কার্ড গ্রহণ করেন তিনি।

নির্বাচন কমিশন (ইসি) প্রায় ১০ কোটি নাগরিককে এই স্মার্ট কার্ড দেবে। আজ উদ্বোধনের পর ঢাকার দুটি সিটি করপোরেশন ও কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলায় স্মার্ট কার্ড বিতরণ করা হবে। পর্যায়ক্রমে জেলা, উপজেলা, পৌরসভা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডে স্মার্ট কার্ড বিতরণ করা হবে।

বর্তমানে দেশে ভোটার সংখ্যা প্রায় ১০ কোটি। আট বছর আগে ৮ কোটি ১০ লাখ ৫৮ হাজার ৬৯৮ নাগরিকের মধ্যে প্রথম জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ করা হয়েছিল। কিন্তু কিছু অসাধু লোক ওই পরিচয়পত্র নকল করেছিলো। মেশিন রিডেবল স্মার্টকার্ড এ ধরনের জালিয়াতি প্রতিরোধ করবে। স্মার্টকার্ডের নিরাপত্তা বজায় রাখার জন্য ২৫টি আন্তর্জাতিক সার্টিফিকেশন এবং মান নিশ্চিত করা হয়েছে।

সংশ্লি­ষ্ট কর্মকর্তারা জানান, ভুয়া পরিচয়পত্র প্রতিরোধে কার্যকরি স্মার্টকার্ড। এই স্মার্টকার্ড ব্যবহারে চাকরির আবেদন, ভোটার শনাক্তকরণ, ব্যাংক হিসাব খোলা, পাসপোর্ট তৈরি, ই-গভর্নেন্স, ই-পাসপোর্ট সেবাসহ ২৫ ধরনের সেবা গ্রহণ করা যাবে। এর বিশেষত্ব হলো, স্মার্টকার্ডটি অনলাইনে ও অফলাইনে দু’ভাবেই ভেরিফিকেশন করা যাবে। এতে নাগরিকের সব তথ্য সংবলিত মাইক্রোচিপস থাকবে। বিতরণ প্রস্তুতি শেষ করতে পারেনি ইসি !

এদিকে, ঢাকার দুই থানায় কার্ড বিতরণের প্রস্তুতি শেষ করতে পারেনি নির্বাচন কমিশনের অধীনস্থ জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অণুবিভাগ। জানা গেছে, আগামীকাল উত্তরার ১ নম্বর ওয়ার্ড ও রমনার ১৯ নম্বর ওয়ার্ডের কার্ড বিতরণ করা হবে। উত্তরার ১ নম্বর ওয়ার্ডে ৬৩ হাজার ভোটার রয়েছে। শনিবার পর্যন্ত কার্ড পৌঁছেছে ৫৭ হাজার। এখনো ৬ হাজার কার্ড পৌঁছেনি। এছাড়া কার্ড বিতরণের কার্যক্রমে অর্থ বরাদ্দ দেওয়া হয়নি। এ কারণে প্রস্তুতিমূলক কাজে স্থবিরতা দেখা দিয়েছে। প্রাপ্তি রশিদের কপি পাননি এ দুই থানার নির্বাচন কর্মকর্তারা। প্রতি টিমে ৫ জন ডাটা এন্ট্রি অপারেটর ও ২ জন সহকারী নিয়োগ দেয়া হয়েছে। টিম লিডার নিয়োগ দেয়া হয়নি। এর আগে জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণে প্রতিটি টিমে একজন লিডার ছিলেন। এছাড়া ডাটা এন্ট্রি এবং আঙুলের ছাপ নেওয়ার জন্য সরবরাহ করা ল্যাপটপের মানও ভাল নয় বলে জানা গেছে। এ বিষয়ে জানতে যোগাযোগ করা হলেও জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অণুবিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সুলতানুজ্জামান মো. সালেহ উদ্দিনের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

যেভাবে পাওয়া যাবে স্মার্টকার্ড

জাতীয় পরিচয়পত্রধারী ভোটারদের স্মার্টকার্ড নেয়ার জন্য নতুন করে আঙুলের ছাপ দিতে হবে। তবে এ ক্ষেত্রে জাতীয় পরিচয়পত্রের মত কেবল বৃদ্ধাঙুল বা শাহাদাত আঙুলের ছাপই যথেষ্ট নয়, লাগবে দুইহাতের ১০ আঙুলের ছাপ। এছাড়া আইরিশ বা চক্ষুর কনীনিকার ছবিও দিতে হবে। বর্তমান লেমিনেটিং করা কার্ডটি জমা দিতে হবে। কার্ডটি ১০ বছরের জন্য তৈরি হচ্ছে। প্রতি স্মার্টকার্ড তৈরিতে কমিশনের ব্যয় হয়েছে প্রায় ২ ডলার। তবে এটি বিনামূল্যে নাগরিকদের দেয়া হবে। এরপর নবায়ন, হারানো কার্ড উত্তোলন বা সংশোধনের জন্য নির্ধারিত ফি পরিশোধ করতে হবে।

মতামত...