,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

হজে যেতে নিবন্ধনের শেষ সময় ১০ এপ্রিল

নিজস্ব প্রতিবেদক, ৩১ মার্চ, বিডিনিউজ রিভিউজ.কম:: প্রাক-নিবন্ধনকারী হজযাত্রীদের চলতি বছর হজে যেতে নিবন্ধনের জন্য আরও ১১ দিন সময় দিয়েছে সরকার। সরকারি ও বেসরকারি হজযাত্রীদের ২৮ থেকে ৩০ মার্চ হজ নিবন্ধনের সময় বেঁধে দিলেও ধর্ম মন্ত্রণালয় বুধবার এক বিজ্ঞপ্তিতে এই সময় ১০ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়িয়েছে।

প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত নিবন্ধন সার্ভার উন্মুক্ত থাকবে। বেসরকারি প্রাক-নিবন্ধনের সিরিয়াল নম্বর ২ লাখ ১৭ হাজার ২৮৮ পর্যন্ত চলতি বছরের নিবন্ধনের জন্য প্রাথমিকভাবে নির্ধারণ করেছে ধর্ম মন্ত্রণালয়।
সৌদি সরকারের নিয়ামানুযায়ী, হজে যেতে নির্দিষ্ট সার্ভারের মাধ্যমে অনলাইনে নিবন্ধন করতে হয়। তবে এই নিবন্ধনের আগে বাংলাদেশে বছর জুড়েই প্রাক-নিবন্ধন প্রক্রিয়া চালু থাকে।

বুধবার রাত ৮টা পর্যন্ত বেসরকারি ব্যবস’াপনায় ২০৬টি এজেন্সির ৮ হাজার ৪৬৬ জন এবং সরকারি ব্যবস’াপনায় ২ হাজার ৫৩০ জন নিবন্ধনের জন্য ডাটা এন্ট্রি করেছেন।

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ১ সেপ্টেম্বর হজ হওযার কথা রয়েছে।

এবার বাংলাদেশ থেকে সরকারি ও বেসরকারিভাবে হজে যেতে প্যাকেজ-১ এ তিন লাখ ৮১ হাজার ৫০৮ টাকা এবং প্যাকেজ-২ এ তিন লাখ ১৯ হাজার ৩৫৫ টাকা খরচ হবে। গত ১৫ জানুয়ারি থেকে সরকারি ব্যবস’াপনায় এবং ১৯ ফেব্রুয়ারি থেকে বেসরকারি ব্যবস’াপনায় হজে যাওয়ার প্রাক-নিবন্ধন শুরু হয়।

এ বছর বাংলাদেশ থেকে এক লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন হজে যেতে পারবেন। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস’াপনায় ১০ হাজার এবং বেসরকারি ব্যবস’াপনায় এক লাখ ১৭ হাজার ১৯৮ জন।

এর আগে এক বিজ্ঞপ্তিতে ধর্ম মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, এবার বেসরকারি ব্যবস’াপনার হজযাত্রীদের মধ্যে ২ হাজার ৬০৪ জন হজ গাইড এবং হজ ব্যবস’াপনার জন্য হজ এজেন্সির ৮৫০ জন সৌদি যাবেন। বাকি এক লাখ ১৩ হাজার ৭৪৪টি খালি কোটা পূরণের জন্য প্রাক-নিবন্ধনের সিরিয়াল ২ লাখ ১৭ হাজার ২৮৮ পর্যন্ত চলতি বছরের নিবন্ধনের জন্য প্রাথমিকভাবে নির্ধারণ করা হয়েছে।

“সংশ্লিষ্ট হজ এজেন্সি তাদের ব্যাংক হিসাবে নিবন্ধন ভাউচারের মাধ্যমে বিমান ভাড়া বাবদ এক লাখ ২৪ হাজার ৭২৩ টাকা জমা দেবে। হজ এজেন্সি টিকেটের টাকা অন্য কোনো কাজে উত্তোলন করতে পারবে না।”

নিবন্ধন কার্যক্রমে নির্বাচিত ব্যাংকগুলো সরকার নির্ধারিত অর্থ প্রাপ্তি নিশ্চিত করে হজযাত্রীদের নিবন্ধন করবে জানিয়ে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, যারা নিবন্ধনের টাকা জমা দিতে ব্যর্থ হবেন, তাদের ক্ষেত্রে কোটা পূরণের জন্য জাতীয় হজ ও ওমরাহ নীতি অনুসরণ করা হবে। সরকার নির্ধারিত সিরিয়ালের বাইরে কারো কাছ থেকে হজ প্যাকেজের অর্থ নেওয়া যাবে না।

সিরিয়ালের (২,১৭,২৮৮) সীমাবদ্ধতার কারণে কোনো হজ এজেন্সি নূন্যতম ১৫০ জন হজযাত্রীর কোটা পূরণ করতে না পারলে আগামী ২৮ মার্চের মধ্যে তাদের লিড এজেন্সি (অন্য হজ এজেন্সির সঙ্গে মিলে ১৫০ জনের কোটা পূরণ, এক্ষেত্রে লিড এজেন্সির নামই সৌদিতে পাঠানো হবে) নির্ধারণ করতে হবে।

সরকারি ব্যবস’াপনায় প্রাক-নিবন্ধিত হজযাত্রীদের নির্বাচিত প্যাকেজের অবশিষ্ট অর্থ সোনালী ব্যাংকের যে কোনো শাখায় জমা দিয়ে নিবন্ধন করতে হবে বলে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

নিবন্ধনের জন্য ২০১৭ সালের হজ প্যাকেজ-১ এর সরকারি হজযাত্রীদের বাকি তিন লাখ ৫৩ হাজার ৫০৮ টাকা এবং হজ প্যাকেজ-২ এর হজযাত্রীদের বাকি ২ লাখ ৯১ হাজার টাকা জমা দিতে হবে।

মতামত...