,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

হেফাজতের সেই ঘটনার ৩ বছর আজ

hafajat saplachattar meetingনিজস্ব প্রতিবেদক, বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ ঢাকা, নাস্তিক ব্লগারদের শাস্তির বিধান রেখে আইনপ্রণয়নসহ ১৩ দফা দাবিতে মতিঝিলের শাপলা চত্বরে অবস্থান নেয় হেফাজতে ইসলাম।হেফাজতে ইসলামের বিরুদ্ধে পুলিশ ও ব্যবসায়ীদের বাদী হয়ে করা অর্ধশত মামলা তথ্য প্রমাণের অভাবে এগুচ্ছে না। পুলিশের পক্ষ থেকে এ পর্যন্ত মাত্র ৩টি মামলার চার্জশিট দেয়া হলেও, ডিবির মামলাগুলো সব ঝিমিয়ে ঝিমিয়ে চলছে- যেমনটি চলছে এখনকার হেফাজত; শুধু প্রেসরিলিজের মধ্যে সীমাবদ্ধ।

হেফাজতের কয়েক হাজার নেতাকর্মীর নামে করা মামলাগুলোর তৃতীয় বছর পূর্ণ হচ্ছে কাল বৃহস্পতিবার।

২০১৩ সালের ৫ মে ১৩ দফা দাবিতে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী, মতিঝিল, পল্টন, রমনা, শাহবাগ, কলাবাগান ও শেরে বাংলা নগর থানা এলাকায় ব্যাপক তাণ্ডব চালায় হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীরা। এর জেরে রাজনীতির অনেক হিসাব নিকাশ তখন পাল্টে গেছে। বিশ্বব্যাপী আলোচিত হয়েছে বাংলাদেশ।

এ ঘটনায় ওই রাতেই অজ্ঞাতনামা কয়েক হাজার নেতাকর্মীকে আসামি করে পুলিশ ও ব্যবসায়ীরা বাদী হয়ে মামলা করেন।

মামলার এজাহারের বিবরণ ও হিসাব অনুযায়ী, হেফাজতের দেয়া আগুনে ভস্মীভূত হয়েছে ৫ হাজারেরও বেশি দোকান, ব্যাংক, একাধিক ব্যাংকের এটিএম বুথ, সরকারি গাড়ি, বাস, মোটরসাইকেল, পিকআপসহ বিভিন্ন ধরনের যানবাহন। সব মিলিয়ে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ অর্ধশতাধিক কোটি টাকা। হেফাজতের তাণ্ডবে অর্থনৈতিকভাবে পঙ্গু হয়ে গেছে ১০ হাজারেরও বেশি পরিবার। হাজার হাজার বই ও পবিত্র কোরান-হাদিসেও অগ্নিসংযোগ করা হয়েছিল। কেটে ফেলা হয়েছিল রাস্তার সৌন্দর্য বর্ধনকারী শত শত গাছ।

জানা যায়, হেফাজতের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে নাhafajat saplachattar meeting. fand picশকতার ঘটনায় রাজধানীর বিভিন্ন থানায় মোট ৫৩টি মামলা হয়। এর মধ্যে এ বছরের শুরুতে রমনা থানা পুলিশ ১টি এবং কলাবাগান থানা পুলিশ ২টি মামলার চার্জশিট আদালতে জমা দেয়। বাকি ৫০টি মামলা এখনো তদন্তাধীন। এরমধ্যে সর্বোচ্চ মামলা রয়েছে পল্টন থানায়। সেখানে রয়েছে ২৪টি মামলা ও মতিঝিল থানায় ৩টি, রমনায় ২ টি, শাহবাগে ৩টি, যাত্রাবাড়ীতে ৩টি এবং ধানমণ্ডি থানায় রয়েছে ১টি মামলা।

 হেফাজত নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে এখনো তদন্তাধীন ৫০টি মামলার মধ্যে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশে রয়েছে ১৫টি। ওই দিনের সবচেয়ে স্পর্শকাতর মামলাগুলোর তদন্তভার তাদের দেয়া হলেও একটির চার্জশিট দেয়া হয়নি।

ডিবির তদন্তে থাকা মামলার মধ্যে পুলিশের উপ-পরিদর্শক এসআই শাহজাহান হত্যা মামলায় বিএনপির শীর্ষ নেতা ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, এম কে আনোয়ার ও রফিকুল ইসলাম মিয়া গ্রেপ্তার হয়েপরে জামিনে আসে।

 ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘প্রয়োজনীয় সাক্ষ্য প্রমাণ ও ভিডিও ফুটেজের সীমাবদ্ধতার কারণে তদন্তে সময় লাগছে। আমরা ইতিমধ্যেই একটি মামলায় ৩ জনকে গ্রেপ্তার করে আদালতে সোপর্দও করেছি। কিন্তু মামলাগুলো স্পর্শকাতর হওয়ায় চার্জশিট দিতে একটু সময় লাগছে।’

যদিও সেই দিনের ঘটনাপ্রবাহ প্রায় সব টেলিভিশন এবং অনলাইন পত্রিকায় লাইভ সম্প্রচার করা হয় এবং পরের দিন জাতীয় দৈনিকগুলোকে সচিত্র প্রতিবেদন ছাপা হয়েছিল।

উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের ৫ মে নাস্তিক ব্লগারদের শাস্তির বিধান রেখে আইনপ্রণয়নসহ ১৩ দফা দাবিতে মতিঝিলের শাপলা চত্বরে অবস্থান নেয় হেফাজতে ইসলাম। ওই দিন মধ্যরাতে রাতেই ১৫ মিনিটের অভিযানে তাদের ঢাকা ছাড়তে বাধ্য করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনি।

 

মতামত...