,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

নিজস্ব প্রতিবেদক,চট্টগ্রাম,২৩, জানুয়ারি (বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকম):: প্রবাসে বাবার সঙ্গে আর্থিক লেনদেন নিয়ে বিরোধের জের ধরে চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে শোয়েব আক্তার আপন (১২) নামে এক স্কুলছাত্রকে অপহরণ করেছিল দুর্বৃত্তরা। পুলিশ টানা নয়দিন অভিযান চালিয়ে শুক্রবার (২২ জানুয়ারি) রাতে খাগড়াছড়ির গুইমারা থেকে আপনকে উদ্ধার করেছে।  একইসঙ্গে ছয় অপহরণকারীকে আটক করেছে।

চট্টগ্রামের পুলিশ সুপার একেএম হাফিজ আক্তার বাংলানিউজকে বলেন, জানুয়ারি মাসে রাউজান, রাঙ্গুনিয়া এবং হাটহাজারীতে তিনটি অপহরণের ঘটনা ঘটেছে।  তিনটি ঘটনাতেই আমরা দ্রুত ভিকটিমকে উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছি।  অপহরণকারীদেরও আমরা গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়েছি।

শোয়েব আক্তার আপন হাটহাজারী উপজেলার নাঙ্গলমোড়া ইউনিয়নের দক্ষিণ নাঙ্গলমোড়ার কাছিম মাঝি বাড়ির মো.কবিরের ছেলে।  কবির দুবাইয়ের শারজাহতে থাকেন এবং ব্যবসা করেন।  কবিরের স্ত্রী জেসমিন আক্তার উপজেলা সদরে জেসমিন ভবনে এক ছেলে ও দুই মেয়েসহ তিন সন্তান নিয়ে থাকেন।  আপন হাটহাজারীর পার্বতী উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণীর ছাত্র।

জেসমিন আক্তার বাংলানিউজকে জানান, ১৩ জানুয়ারি সন্ধ্যার দিকে দু’জন অজ্ঞাতপরিচয় লোক তাদের বাসায় আসে।  কলিংবেল দিলে তিনি দরজা খুলে দেন।  এসে তারা কবির তাদের পাঠিয়েছে বলে জানায়।  তারপর কবিরের মোবাইল নম্বর চেয়ে নেয় তারা।

এসময় ৭-৮ জন মুখোশপরিহিত যুবক ভেজানো দরজা ঠেলে ভেতরে ঢুকে যায়।  তারা জেসমিন আক্তারের মুখ বেঁধে তাকে একটি কক্ষে নিয়ে আটকে রাখে।  এরপর আপনের হাত, পা ও মুখ বেঁধে তাকে সিএনজি অটোরিক্সায় তুলে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা।  এসময় জেসমিন আক্তার চিৎকার দেয়ার চেষ্টা করলে তার গলা টিপে ধরে দুর্বৃত্তরা।

এ ঘটনায় ওইদিনই জেসমিন আক্তার বাদি হয়ে হাটহাজারী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।  একমাত্র ছেলেকে ‍অপহরণের কথা শুনে দুবাই থেকে দ্রুত দেশে আসেন কবির।

আপন বাংলানিউজকে জানায়, অপহরণ করে নিয়ে যাবার পর তাকে একটি ঘরে আটকে রেখে দুর্বৃত্তরা মারধর করে।

মো.কবির বাংলানিউজকে জানান, দুবাইয়ে মোস্তফা নামে তাদের গ্রামের একজনের সঙ্গে আর্থিক লেনদেন নিয়ে তার বিরোধ সৃষ্টি হয়।  কবির মোস্তফ‍ার বিরুদ্ধে সেদেশের বাংলাদেশ হাইকমিশনে অভিযোগ করেন।  এতে মোস্তফা তার উপর ক্ষুব্ধ হয়।  মোস্তফা লোক ভাড়া করে দিদারুলের মাধ্যমে তার ছেলেকে অপহরণের পরিকল্পনা করে।

হাটহাজারী থানার ওসি মোহাম্মদ ইসমাইল বাংলানিউজকে বলেন, মামলা দায়েরের পর আমরা হাটহাজারী, রাঙ্গুনিয়া ও রাঙামাটির বিভিন্ন এলাকা থেকে ছয় অপহরণকারীকে আটক করি।  তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে আপনকে খাগড়াছড়ির গুইমারায় জনৈক আলী হোসেনের বাড়ি থেকে উদ্ধার করি।

আটক ছয়জন হল, আন্ত:জেলা অপহরণ চক্রের মূল হোতা নূরউদ্দিন, শিপলু নাথ, অপু দাশ,

মতামত...